Chati age sex albanian girls dating

All you have to do is answer a couple of simple questions and you’re ready to go.

Why get bogged down with inconvenient registration pages when you don’t have to?

Along with the great atmosphere there is a wonderful staff that regulate the negativity that all chats would bring.

Hot chat room for all hot chattters and find hot girls with great shape.

free chat now , chat no register , free text chat , Chat random , Singles chat , Nickname , Age , Sex ( Male / Female ) , Country and State.The chatrooms are intended for those considered to be an adult (which specifically means ages 18 and older).If those do not spark your interest, try video chat or sex chat which has the most interesting people that you can possibly meet.” - “ না মানে ইচ্ছে করে দেখিনি। জলের শব্দ পেয়ে তাকিয়ে ফেলেছিলাম। - তাকিয়ে কি দেখলি?মনের কোনে ভেজা গামছা পরা অবস্থাতে প্রমাদির ছবি ভেসে উঠতেই চোখ চলে গেল সোজা বুকের দিকে। এত সামনে থেকে ওগুলোকে এত ভালো করে দেখিনি কখনো। একটা tight সালোয়ার পরে এসেছে আজ। কোমরটা সরু আর বুকের কাছটাতে ফোলা। নির্নিমেষ দৃষ্টিতে তাকিয়ে ছিলাম বেশ কিছুক্ষন। প্রমাদি আস্তে আস্তে উঠে দরজাটা বন্ধ করে দিল। তারপর বিছানাতে পাশে বসে সোজা প্যান্টের দিকে হাত বাড়িয়ে দিল “ দেখি তুই কতবড় হয়েছিস”। বারমুডা পরে ছিলাম, ভেতরে কিছু ছিল না। প্যান্টের মধ্যে হাত ঢুকিয়ে সোজা ধোনটাকে মুঠো করে ধরল। এতক্ষন ধরে দাঁড়িয়ে ছিল, এবার নরম হাতের ছোয়া পেয়ে যেনো ফুঁসে উঠলো। হাতটা ঠিকঠাক adust করার জন্য একদম পাশে সরে এল প্রমাদি, আর ধোনটাকে খেঁচে দিতে শুরু করল। আমি আর নিজেকে control করতে পারলাম না। ডানহাত দিয়ে প্রমাদিকে টেনে নিয়ে বাঁদিকের স্তনটার ওপর ঝাপিয়ে পড়লাম। ওফফফফফফ…কি নরম। যেন একরাশ তুলোর মধ্যে হাত ডুবিয়ে দিলাম। কোমরটা আরেকটু টেনে নিয়ে আমার দিকে পেছন করে বসিয়ে দিলাম। আর পেছন থেকে হাতের তলা দিয়ে দুটো স্তন দুহাতে টিপতে শুরু করলাম। একটু জোরে টিপতেই প্রমাদি বলে উঠলো “ আস্তে টেপ, নইলে একদিনেই ব্যাথা হয়ে যাবে।” ঘাড়ের উপর পড়ে থাকা চুলের গোছাগুলো একপাশে সরিয়ে দিয়ে একের পর এক চুমু খেতে শুরু করলাম। তারপর পিঠের উপর সালোয়ারের বোতাম গুলো একটা একটা করে খুলে দিলাম। হাত গলিয়ে সালোয়ারের উপরের অংশটাকে শরীরের বাইরে বার করে দিলাম। দুহাত দিয়ে শুধু ব্রা পরা স্তনদুটিকে টিপতে শুরু করলাম। আর খোলা পিঠটাতে বারবার চুমু খেতে লাগলাম। আকর্ষন যেন ক্রমেই বাড়তে লাগছিল। একটানে কাঁধ থেকে ব্রার স্ট্রাপটা নামিয়ে দিলাম। তারপর একটানে বাঁদিকের কাপটাকে টেনে নামিয়ে স্তনটাকে আলগা করে দিলাম। কয়েকদিন ধরে যে স্তনদুটো কে স্বপ্নে দেখছিলাম, সেগুলো আমার চোখের সামনে। পুরো স্তনটাকে হাতেনিয়ে অনুভব করলাম অদ্ভুত সেই সুখানুভুতি। শক্ত হয়ে যাওয়া nipple গুলো হাতের তালুতে খোচা মারছে। প্রমাদি হাতটা পেছনে ঘুরিয়ে স্ট্রাপটা পুরো খুলে ব্রাটা দূরে ফেলে দিল। নিজেকে আর আটকাতে পারলাম না। প্রমাদিকে শুইয়ে দিলাম বিছানার ওপর। জামাটা খুলে দুহাতে দুটো স্তন ভরে নিয়ে শুয়ে পড়লাম প্রমাদির বুকের ওপর। ঠোটদুটোকে মুখের মধ্যে ভরে নিয়ে চুষতে লাগলাম। এরপর নেমে এলাম বুকের ওপর। কালচে রঙের ছোট্টো বৃন্তটা স্তনের ওপর জ়েগে আছে। মুখের মধ্যে ভরে নিলাম। অন্য বৃন্তটাকে দুআঙ্গুল দিয়ে টিপতে, টানতে আর ঘোরাতে শুরু করলাম। প্রমাদি দু হাত দিয়ে মাথার চুলগুলো আঁকড়ে ধরে মুখটাকে বুকের ওপর আরো বেশি করে চেপে ধরলো। আমি দাঁতের ফাকে আরেকটা বৃন্তকে কামড়ে ধরলাম। একটু পরে প্রমাদি মাথাটাকে ধরে ডানদিকের স্তনে নিয়ে এল। বাহাতটা আস্তে আস্তে নামিয়ে দিলাম নাভী দিয়ে দুপায়ের মাঝে। একটু ভয় লাগছিল, জানি না প্রমাদি কতদূর allow করবে?আমার নাম শুভদীপ রায়। বয়স ২৪ বছর। সল্টলেকে একটা MNC তে সফটওয়ার এঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজ করি। আজ আমি আপনাদের কাছে আমার পুরোনো দিনের কিছু কথা share করবো। আমার বাড়ী পশ্চীমবংগের একটা ছোট্টোগ্রামে। খুব পুরোনো না, একটা সদ্য গড়ে ওঠা গ্রাম। পাড়াতে আমাদের এবং আরো চারটি পরিবার ছাড়া সবাই ছিল খুবই নিম্নবিত্ত পরিবার। আমাদের পাশের বাড়িটা ছিল প্রমাদি র বাড়ি। প্রমা আর নিধি ছিল দুই বোন। নিধি আমার সাথে Class 11 এ পড়তো। আর প্রমাদি BA পড়ছে। প্রমাদির চেহারা খুব একটা আকর্ষনীয় ছিল না। তবে শ্যামলা রঙ, টিকোলো নাক, তন্বী figure নিয়ে মন্দ ছিল না। কিন্তু আমার আকর্ষন ছিল নিধি র উপর। গায়ের রঙ খুব ফরসা ছিল না। মুখ খানা খুব সুন্দর। স্লিম figure । ছোট্টো বুক।আর সবচেয়ে সুন্দর ছিল ওর পাছাটা। একদম ভরাট। বিশেষ করে যখন ও পাছা দুলিয়ে হেটে যেত, তখন একবার হাত বুলিয়ে দেওয়ার ইচ্ছেটা অনেক কষ্টে চেপে রাখতে হোতো। তখন সময়টা ছিল শীতের শুরু। এক দুপুর বেলা নিধির মা আর আমার মা আরো দুই পরিবার এর কাকিমারা একসাথে কলাই এর বড়ি দিতে খুব ব্যস্ত, আমার আরেক পাশের বাড়ীর কাকিমার ছাদেতে। আর আমি উঠোনে বসে রোদে দেওয়া কলাই পাহারা দিচ্ছি, মায়ের next বড়ি session এর জন্য। হঠাৎ ই নিধির বাড়ীর কল থেকে জল তোলার আওয়াজ পেয়ে পাচিলের ঘুলঘুলিতে চোখ রাখলাম। ঘুলঘুলিটা আসলে ছিল দু বাড়ির মধ্যে কোনো কিছু দেওয়া নেওয়ার জন্য, তা সে হোক হলুদ বাটা বা আমসত্ত। ঘুলঘুলিতে ছোখ রেখে দেখি প্রমাদি কলতলাতে স্নান করছে। একটা গামছা পরে আছে শরীরে। আমার ঘুলঘুলি থেকে বড়জোর ১০ ফুট দূরে কলতলা। সুতরাং সবই পরিষ্কার দেখতে পাচ্ছিলাম।শীতের শুরুতে ঠান্ডা জল গায়ে পড়ার জন্য nipple টা শক্ত হয়ে ফুলে উঠেছে। ভেজা গামছার উপর দিয়ে nipple টা পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে। সাবান হাতে নিয়ে প্রমাদির হাত গলা, ঘাড়, খোলা পিঠ হয়ে গামছার ভেতর বুকের উপর অদৃশ্য হয়ে গেল। একটু আগে দেখা শক্ত nipple এর ওপর সাবান হাতে নিয়ে প্রমাদি কি করছে ভাবতে গিয়ে হাত প্যান্টের মধ্যে পৌছে গেল। প্যান্ট ততক্ষনে তাবু হয়ে গেছে। এদিকে বেশ কয়েকবার সাবান বোলানোর পর প্রমাদির হাত নেমে এল পায়েতে। হাটু ওব্দি হাল্কা সাবান লাগানোর পর হাত আস্তে আস্তে দু পায়ের মাঝে ঢুকে গেল। ঠিকমতো space না পাওয়ার জন্য প্রমাদি আস্তে আস্তে পা ফাক করতে লাগলো। আর সাথে সাথে গামছা তা হাটুর আরো ওপরে উঠে যেতে লাগলো। ওফফফফ্J কি চকচকে একটা পা। আর কি সুন্দর ঊরু। কারো ঊরু যে এত সুন্দর হতে পারে আগে আমার ধারনা ছিল না। ইচ্ছে করছিল তখুনি ঝাপিয়ে পড়ি। হাত ততক্ষনে প্যান্টের ভেতর কাজ শুরু করে দিয়েছে। বেশ কয়েকবার সাবান লাগানোর পর প্রমাদি সাবানটা বাইরে রেখে শুধু হাত দু পায়ের মাঝে ঢুকিয়ে দিল, আর বারবার ঘষতে শুরু করল। আরামে মাথাটা আস্তে আস্তে ওপরের দিকে উঠে গেল। দুই ঠোট ফাঁক হয়ে গেছে। বুক হাপরের মত ওঠানামা করছে। পাটা ক্রমে ক্রমে আরো ফাঁক হতে শুরু করলো, আর গামছা আর ওপরে। আমি প্রমাদির side এ থাকায় শুধু মসৃন ঊরু দেখতে পাচ্ছিলাম। গামছা ক্রমে ওঠে পাছা দেখা গেল। আর বুকের ওঠানামার জন্য আস্তে আস্তে বুকের উপর গামছা ঢিলে হয়ে বুকের ডানদিক দেখা যেতে লাগলো। একদম খাঁড়া, একটুও ঝোলেনি বুকটা। নিউটনের সমস্ত মাধ্যাকর্ষন সুত্রকে ভুলে গিয়ে বুকের ওপর সোজা দাঁড়িয়ে থাকা স্তন, মসৃন ঊরু, ভরাট পাছা – এসব দেখে আমার অবস্থা খারাপ। হাত চলছে ফুল স্পীডে। Orgasm এর শীর্ষে পৌছে আর ধরে রাখতে পারলাম না নিজেকে। ছেড়ে দিলাম, আর মুখ থেকে একটা আওয়াজ বেরিয়ে এল – ‘আহহহহহহহহহ”। আর তখুনি ঘাড় ঘুরিয়ে আমাকে দেখে প্রমাদি “কে কে “ বলে চেচিয়ে ওঠল। চট করে মাথাটা নামিয়ে একদম বাড়ির ভেতরে চলে এলাম। ততক্ষনে হাত আর প্যান্ট দুটোই চটচটে রসে মাখামাখি হয়ে গেছে।ঘটনাটা ঘটার পর বেশ কয়েকদিন হয়ে গেছে। এর মধ্যে বেশ কয়েকবার মুখোমুখি হয়েছি প্রমাদির। সববারেতেই আশেপাশে কেউ না কেউ ছিল। তাই হয়তো ওই ঘটনাটা নিয়ে কোনো কথা বলেনি প্রমাদি। কিন্তু যখনি ওর দিকে তাকিয়েছি, ওই বুকের ওপর সোজা দাঁড়িয়ে থাকা স্তন, মসৃন ঊরু, ভরাট পাছা মনে পরে গেছে। নিজের ওপর control রাখতে পারবো না ভেবে সরে গেছি। তারপর একদিন দুপুর বেলা আমার রুমেতে শুয়ে শুয়ে একটা সদ্য পাওয়া চটি বই তন্ময় হয়ে পড়ছি। বাড়িতে কেউ নেই। মা গেছে কোনো কাকিমার বাড়ি regular PNPC করতে। দরজা খোলা। আর আমার এক হাত প্যান্টের মধ্যে ঢুকে খেলতে ব্যাস্ত। এমন সময় হঠাৎই দরজার কাছে হাল্কা চুড়ির শব্দ এল, আর প্রমাদির গলা পেলাম “ খুব ব্যাস্ত নাকি?

107

Leave a Reply